রবিবার, ২৬শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১২ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, সকাল ৮:৫৫

জামাইয়ের বিরুদ্ধে শাশুড়ির মামলা।

ডেইলি ক্রাইম বার্তা ডেস্ক : জাবেদ ভূঁইয়া প্রায় দেড় বছর আগে বিয়ে করেন এবং এরপর থেকে শ্বশুরবাড়িতেই থাকতেন তিনি। টাকার লোভে স্ত্রীকে পাঠান জর্ডানে। আর স্ত্রীর টাকায় বাড়িতে বসে জাবেদ মাদক সেবন করতেন। সম্প্রতি স্ত্রীর কাছে মোটা অংকের টাকা চান। কিন্তু টাকা না দেয়ায় স্ত্রীর অন্তরঙ্গ ছবি ফেসবুকে ছড়িয়ে দেন জাবেদ।
এসব অভিযোগ এনে মঙ্গলবার বিকেলে মেয়ের জামাই জাবেদ ভূঁইয়ার বিরুদ্ধে চুনারুঘাট থানায় মামলা করেন শাশুড়ি। এ মামলায় জাবেদের বাবা মুক্তার ভূঁইয়া ও মা নুরবানুসহ অজ্ঞাত দু-তিনজনকে আসামি করা হয়।
ভুক্তভোগী প্রবাসী গৃহবধূর মা জানান, ২০১৯ সালের জুলাইয়ে তার মেয়ের সঙ্গে জাবেদের বিয়ে হয়। বিয়ের পর জাবেদ শ্বশুরবাড়িতে থাকতেন। পরে তার মেয়েকে জর্ডানে পাঠান জাবেদ। জর্ডান প্রবাসী মেয়ে প্রায় সাড়ে তিন লাখ টাকা জাবেদের কাছে পাঠান। জাবেদ আরো টাকা পাঠাতে চাপ দিলে হিসাব জানতে চান প্রবাসী গৃহবধূ। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে গোপনে তোলা স্ত্রীর সঙ্গে অন্তরঙ্গ ছবি একের পর এক ভুয়া আইডি দিয়ে ফেসবুকে পোস্ট করতে থাকেন জাবেদ।
গৃহবধূর মা বলেন, বিদেশ থেকে এসব নোংরা ছবি দেখে কয়েকবার আত্মহত্যারও চেষ্টা করেন আমার মেয়ে। কিন্তু আমরা তাকে সান্ত্বনা দেই।
এ ব্যাপারে ভুক্তভোগী প্রবাসী গৃহবধূ বলেন, জাবেদ ভূঁইয়া ইয়াবা ও মাদকসেবী। কিছুদিন আগে সে আন্তঃজেলা মোটরসাইকেল চোরাকারকারির সঙ্গে আটক হয়ে কারাগারে ছিল। বিয়ে করে টাকা হাতিয়ে নিয়ে সে এখন বিয়েও অস্বীকার করছে। আমাদের সহবাসের ছবি ফেসবুকে ছড়িয়ে দিচ্ছে।
চুনারুঘাট থানার ওসি (তদন্ত) চম্পক দাশ বলেন, বিষয়টি খুবই দুঃখজনক। তদন্ত সাপেক্ষে এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নেয়া হবে।