শুক্রবার, ১৯শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৪ঠা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, সন্ধ্যা ৭:০১

সাংস্কৃতিক সংগঠনের মাঝে পটুয়াখালীতে অনুদানের চেক প্রদান।

ডেইলি ক্রাইম বার্তা ডেস্ক : পটুয়াখালীর সাংবাদিক মিজানুর রহমান অপুর তথ্যের মাধ্যমে জানা যায়, ১৫ টি সাংস্কৃতিক সংগঠনের মাঝে পটুয়াখালীতে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় এর আর্থিক অনুদানের চেক বিতরণ করা হয়েছে। ২০২০-২১ অর্থবছরে চারুশিল্প,থিয়েটার খাত হতে সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলোর মাঝে এই অনুদান প্রদান করা হয়।
সোমবার (১৯ জুলাই) বেলা ১২ টায় জেলা প্রশাসনের আয়োজনে জেলা প্রশাসকের মিলনায়তনে সাংস্কৃতিক সংগঠনের নামে অনুদানপ্রাপ্ত চেক সংগঠনের প্রতিনিধিদের হাতে তুলে দেন জেলা প্রশাসক জনাব, মোহাম্মদ কামাল হোসেন।
পটুয়াখালী জেলার ১৫ টি সাংস্কৃতিক সংগঠনের মাঝে মোট ৪,৫০,০০০/- (চার লক্ষ পঞ্চাশ হাজার) টাকার অনুদান প্রদান করা হয়।
অনুদানপ্রাপ্ত সংগঠনগুলো হলো পায়রা নাট্য শিল্পীগোষ্ঠী, সুন্দরম, বাউল শিল্পী সংঘ, সুন্দরম নাট্য মঞ্চ,সুন্দরম চিলড্রেনস থিয়েটার, পটুয়া খেলাঘর আসর, জেলা বঙ্গবন্ধু শিশু কিশোর মেলা, জাতীয় রবীন্দ্রসংগীত সম্মিলন পরিষদ-পটুয়াখালী, দখিনা নাট্য মঞ্চ, দক্ষিনাঞ্চল বাউল সংঘ, শুকতারা শিল্পাঙ্গন, দখিনা খেলাঘর আসর, পটুয়াখালী আবৃত্তি মঞ্চ, সাগরকন্যা শিল্পাঙ্গন ইত্যাদি।
চেক প্রদানের শুরুতে জেলার সকল সাংস্কৃতিক কর্মীদের পক্ষ থেকে পটুয়াখালী জেলার নব-নিযুক্ত জেলা প্রশাসক জনাব, মোহাম্মদ কামাল হোসেন’কে ফুলের তোড়া দিয়ে শুভেচ্ছা জানান জেলা সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক জনাব, মুজাহিদুল ইসলাম প্রিন্স।
এসময় উপস্থিত সকল সাংস্কৃতিক কর্মী-সংগঠকদের পক্ষ থেকে বক্তব্য রাখেন পটুয়াখালী আবৃত্তি মঞ্চের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা জনাব, মানস কান্তি দত্ত,জেলা সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক জনাব, মুজাহিদুল ইসলাম প্রিন্স ও জেলা বঙ্গবন্ধু শিশু কিশোর মেলার সহ-সভাপতি জনাব, বশির সরকার।
পটুয়াখালীর সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলোর নিয়মিত কোন বসার স্থান নেই। এতে করে কার্যক্রম পরিচালনা করা প্রায় সকল সংগঠনের পক্ষে কষ্টকর। তাই জেলা সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক জনাব, মুজাহিদুল ইসলাম প্রিন্স বক্তব্যের শুরুতেই জেলা প্রশাসকের নিকট একটি সাংস্কৃতিক বলয় তৈরী করার প্রস্তাব রাখেন।
এবং জেলা প্রশাসক মহোদয় জনাব, মুজাহিদুল ইসলাম প্রিন্সের প্রস্তাবকে সাধুবাদ জানিয়ে সকলের সাথে আলোচনা সাপেক্ষে এই সাংস্কৃতিক বলয়/কালচারাল কমপ্লেক্স তৈরী করবেন বলে আশ্বাস প্রদান করেন।
সমাপনী বক্তব্যে জেলা প্রশাসক জনাব, মোহাম্মদ কামাল হোসেন বলেন,
সাংস্কৃতিক কর্মীদের পাশে আমি সবসময় আছি।যেকোন সমস্যায় আপনারা আমার সাথে যোগাযোগ করবেন আমি সর্বোচ্চ সহযোগিতা করার চেষ্টা করবো।