সোমবার, ২২শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৯ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, সকাল ৯:০৫

বাংলাদেশ সেনাবাহিনী খাগড়াছড়ি সদর জোন হত দরিদ্র আব্দুর রশিদের ঘর নির্মাণ করে দিল।

ডেইলি ক্রাইম বার্তা ডেস্ক : মানবিক সেবার অংশ হিসেবে পানছড়ি, খাগড়াছড়িতে অসহায় পরিবারের পাশে দাঁড়ালো বাংলাদেশ সেনাবাহিনী (খাগড়াছড়ি সদর জোন)।
খাগড়াছড়ি জেলার সীমান্তবর্তী পানছড়ি উপজেলার ৩নং পানছড়ি ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ড মোহাম্মদপুর গ্রামের অসহায় এবং বৃদ্ধ আব্দুর রশিদের ঘর নির্মাণ করে দিল খাগড়াছড়ি রিজিয়নের অন্তর্গত খাগড়াছড়ি সদর জোন। গত ০৩ এপ্রিল ২০২১ তারিখ উক্ত ব্যক্তি ০১ টি ঘরের জন্য জোন কমান্ডারের সরনাপন্ন হন। এরই ধারাবাহিকতায় গত ২২ মে ২০২১ (শনিবার) তারিখ খাগড়াছড়ি সদর জোনের সার্বিক ব্যবস্থাপনায় ঘর নির্মাণের কার্যক্রম শুরু হয়, যার কাজ গত ০৯ জুন ২০২১ (বুধবার) তারিখে শেষ হয়। অদ্য ২৭ জুন ২০২১ (রবিবার) তারিখ অসহায় এবং বৃদ্ধ আব্দুর রশিদের নিকট ঘরের চাবি হস্তান্তর করেন খাগড়াছড়ি সদর জোনের ভারপ্রাপ্ত জোন উপ-অধিনায়ক মেজর জনাব, মোঃ সুলতান মাহমুদ শেখ। এই সময় পানছড়ি সাব জোন কমান্ডার কেপটিন জনাব, আহসান হাবীব সহ আরো প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন
এ বিষয়ে খাগড়াছড়ি সদর জোনের জোন কমান্ডার লেঃ কর্ণেল জনাব, মোঃ জাহিদুল ইসলাম, পিএসসি এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, মানুষের মৌলিক পাঁচটি অধিকার এর মধ্যে বাসস্থান অন্যতম। মানুষ তার মৌলিক অধিকারসমূহ যাতে সঠিকভাবে ভোগ করতে পারে খাগড়াছড়ি সদর জোন এ বিষয়ে সর্বদাই কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। তিনি আরও বলেন, খাগড়াছড়ি সদর জোন যেকোনো দুর্যোগপূর্ণ পরিস্থিতিতে আর্ত-মানবতার সেবায় বেসামরিক প্রশাসনকে তাৎক্ষণিক সহায়তায় সর্বক্ষণ পাশে ছিল এবং আগামীতেও পাশে থাকবে। শান্তি, সম্প্রীতি এবং উন্নয়ন এই মূলমন্ত্রকে সামনে রেখে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী পার্বত্য চট্টগ্রামে দীর্ঘদিন যাবৎ অত্যন্ত দক্ষতার সাথে পেশাগত দায়িত্ব পালন করে আসছে। মনে রাখতে হবে আমরা সকলেই খাগড়াছড়ি জেলার বাসিন্দা। এ জেলার উত্তরোত্তর উন্নতি এবং সামনে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া আমাদের সকলের নৈতিক দায়িত্ব। এছাড়াও তিনি বলেন, ভবিষ্যতেও পাহাড়ী জনসাধারণসহ পাহাড়ে বসবাসরত জনগণের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের পাশাপাশি সকল সম্প্রদায়ের মধ্যে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষায় সেনাবাহিনীর এরূপ উদ্যোগ অব্যাহত থাকবে। তিনি জানান, পার্বত্য অঞ্চলের জনগণের জানমাল রক্ষা ও যেকোন দুর্যোগ মোকাবেলায় বাংলাদেশ সেনাবাহিনী নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছে, সেই ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর প্রতিটি সদস্য সদা তৎপর রয়েছে এবং ভবিষ্যতেও থাকবে। সাম্প্রদায়িকতার বন্ধনকে আরো সুদৃঢ় করার লক্ষ্যে আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের পাশাপাশি শিক্ষা, চিকিৎসাসহ সকল ধরণের সহযোগীতা চলমান থাকবে।