শনিবার, ২০শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৬ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, রাত ১:৪৬

প্লাস্টিকের রশি গলায় আটকে মৃত্যু হয়েছে ৭ বছরের এক মেয়ের।

ডেইলি ক্রাইম বার্তা ডেস্ক : দোলনা বানাতে গিয়ে গলায় প্লাস্টিকের রশি আটকে ৭ বছরের শিশু আমেনার মৃত্যু হয়েছে। পুলিশ শিশুর মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য বরগুনা মর্গে প্রেরণ করেছে। হৃদয়স্পর্শী এমন ঘটনাটি বৃহস্পতিবার বরগুনার আমতলী উপজেলার চাওড়া লোদা গ্রামে ঘটেছে। এ ঘটনায় এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।
স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার চাওড়া লোদা গ্রামের হেলাল মাতুব্বরের শিশু কন্যা আমেনা তার তিন বছরের ছোট ভাই রবিউলের জন্য প্লাস্টিকের রশি দিয়ে রান্না ঘরের আড়ার সাথে দোলনা বানাচ্ছিল। এ সময় রশি আমেনার গলায় আটকে যায়। তখন ঘরে কেউ ছিল না। বাবা হেলাল মাতুব্বর রিকসা চালাতেন এবং মা কাজল রেখা প্রতিবেশীর বাড়িতে কাজ করতে যান। ছোট ভাই শিশু রবিউল বোনকে রশিতে ঝুঁলতে দেখে কান্নাকাটি করছিল।
শিশু রবিউলের কান্নার শব্দে প্রতিবেশীরা এসে দেখে আমেনার মরদেহ রশিতে ঝুলছে। তারা পুলিশে খবর দেয়। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে শিশুর মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য আমতলী থানায় নিয়ে আসে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে। লাশ ময়না তদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।
নিহত আমেনার মা কাজল রেখা বলেন, ও মোর সোনার ময়নাডা এইরহম চইল্ল্যা গেলা মোরে কিছু না কইয়া। কেন মুই মানষের বাড়তে কাম হরতে গেলাম।
নিহত শিশুর চাচা শহীদুল গাজী বলেন, ভাইয়ের জন্য দোলনা বানাতে গিয়ে রশিতে আটকে আমেনা মারা গেছে।
আমতলী থানার পরির্দশক (ওসি) জনাব, মো. শাহআলম হাওলাদার বলেন, ছোট ভাইয়ের জন্য দোলনা বানাতে গিয়ে গলায় রশি আটকে বড় বোন আমেনা মারা গেছে। শিশুর মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য বরগুনা মর্গে পাঠানো হয়েছে এবং থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।